স্ত্রী পারমিতা কিছু টের পায়নি (Paromita)

যদি আমার রোজ রোজ বাড়িতে দেরী করে আসা তোমার পছন্দ না হয়, তাহলে তুমি আজ কাজের পর আমাদের অফিসে এসে আমাকে সাহায্য করতে পারো পারমিতা মুখে একরাশ বিরক্তি নিয়ে বললোতুমি কি আমার সাথে ঠাট্টা করছ?” আমি ততোধিক বিরক্তির সাথে আমার প্রতিক্রিয়া জানালামতুমি নিশ্চয়ই জানো কাজ শেষ করার পর আমার শরীরে আর কোনো শক্তি অবশিষ্ট থাকে না

শালী আমাকে চুদতে দে

অমিতাভ একটি হাইস্কুলের মাষ্টার বৃশ্চিক রাশির জাতক বৃশ্চিক রাশির জাতকেরা ভয়ঙ্কর চোদা দিতে পারে মেয়েদের অমিতাভর চরিত্রের লুচ্চামীতে বৌ নন্দিনীর কোনো আপত্তি ছিলনা, এক সাথে অমিতাভ বেশ কিছু নারীর সঙ্গে সম্পর্ক রাখে এর মধ্যে প্রায় পঞ্চাশটার মত মেয়েকে চুদেছে অমিতাভ হাইস্কুলের কয়েক জন দিদিমনির গুদও সে অত্যন্ত যত্ন করে মেরেছে

মামাতো বোনকে

ছোট বেলা থেকে লাজুক স্বভাবের নিজেকে খুব দ্রুত উপস্থাপন করতে পারি না বন্ধু-বান্ধবও খুব বেশি নেই আমার তাই বলে হিংসা বা ছোট মনের কেউ আমাকে বলতে পারবে না আমার মায়ের যখন বিয়ে হয়, তখন আমার ছোট খালার বয়স বছর তিনেক মায়ের বিয়ের এক বছরের মাথায় আমার বড় বোন হল তার পরে বছর চারেক পার হলো অবশেষে পঞ্চম বছরে আমার জন্ম সেই হিসাবে আমার খালার সাথে আমার বছর আর বোনের সাথে বছরের ব্যবধান জন্মের পর থেকে এই দুজনের কাছেই মানুষ হয়েছি আমার দুনিয়া বলতেও এরা দুজনা

ব্যাংক থেকে বেড রুমে

কনট্রাকে একটা কাজ পেয়েছিলাম দুসপ্তাহের কাজ কাজটা ভাল ভাবে শেষ করলাম দুদিন পর হাতে চেক পেলাম কিযে ভাল লাগছিল ৫০ হাজার টাকার চেক আমার সবচেয়ে বেশি উপার্জন একসাথে সবে মাত্র তখন উপার্জনের রাস্তায় নেমেছি ব্যাংকে গেলাম লম্বা লাইন অপেক্ষার পালা শেষ করে যখন চেকটা জমা দিতে গিয়ে কাউন্টারে দেখি অসাধারণ সুন্দরী এক মহিলা 

শরীরের আগুন

ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আমি দুটি আঙ্গুল দিয়ে নিজের গুদ খেঁচে চলেছিঅনবরতআমার শরীর দিয়ে যেন আগুন বের হল ছেলেরা নিজেদের বাড়া খেচে খেচে বাড়ার রসটাচট করে বের করে ফেলতে পারে, মেয়েদের পক্ষে এটা বড়ই কষ্টের গুদ খেচতে খেচতে হাতব্যাথা হয়ে যায় রসটা এই বেরুচ্ছে বেরুচ্ছে করেও বেরুতে চায় না আমার হাত ব্যাথা হয়েযায় শরীর দিয়ে দরদর করে ঘাম বেরুচ্ছে, তবু রসটা বের হচ্ছে না আমি সমানে গুদ খেচেচলেছি

মাগি চোদার টিপস

যারা এখনো কোন মাগীকে হোটেলে নিয়ে চুদেন নি বা চুদবেন চুদবেন ভাবছেন তাদের জন্য আমি আজকে কিছু দেব পরামর্শ যদি পরামর্শগুলো মানেন তাহলে অনেক বাচা বেচে যাবেন না হয় ধরা খাবার সমুহ সম্ভাবনা থাকতে পারে

বৌ এবং মেয়েকে এক সঙ্গে

লীখন খুবই মনের আনন্দে আছে, কারন লীখন কচি মেয়েকে চুদতেছে আজ প্রায় তিন বছর যাবত লীখনের সাথে প্রেমার মার পরিচয় হয় ইন্টার্নেটের তাগ ওয়েব সাইডের মাধ্যমে, প্রথমে বন্ধুত্ব পরে খুবই ঘনিষ্ট সম্পর্ক হয় আচলের সাথে (প্রেমার মায়ের নাম আচল কথা), লীখনের চেয়ে ১২ বছরের বড় প্রেমার মা, তারপরেও লীখন আর প্রেমার মার বন্ধুত্ব অনেক গভীর

বন্ধুর দিদির মেয়ে রুপাকে (Rupa)

রুপা আমার গলায় মুখ গুঁজে শুয়ে আছে আমার উপরে, আস্তে আস্তে নিশ্বাস নিচ্ছে, মাঝে মাঝে হালকা করে পাছা এদিক ওদিক করে ওর গুদ আমার বাঁড়ার উপরে চেপে ধরছেআমার দুহাত ওর পিঠের উপর চোখ বুজে রুপার শরীরের ছোঁয়া নিতে নিতে বললামএখন ছটপট না করে চুপ করে শুয়ে থাকতাড়াহুড়ো করলে আনন্দ পাবিনা আমার কথা শুনে নড়াচড়া বন্ধ করে চুপটি করে শুয়ে থাকলো ওর কোমর দুহাতে ধরে একটু নিচের দিকে নামিয়ে দিলাম যাতে আর আমার বাঁড়ার উপরে গুদ না ঘষতে পারে ওর মুখ এখনআমার বুকের উপরে, ঘাড় কাত করে রেখে বললনামিয়ে দিলে কেন?

কামুক খালা

আমার খালা শ্রীমতী রাবেয়া আটত্রিশ বছর বয়সী একজন ভদ্রমহিলা। উনার শরীরের গাঁথুনি চমত্কার। যাকে বলে অনেক পুরুষের কাছে একটা কামুক শরীর। তার গায়ের রং ফর্সা এবং সাধারণ বাঙালী মহিলাদের মতই গোলগাল হৃষ্ট-পুষ্ট শরীর। তার এই অসাধারণ শরীরের মাপ প্রায় ৪০-৩৪-৪৪।

বড় আপুকে

বন্ধুরা, যে ঘটনাটা বলবো তা আজ থেকে ১২ বছর আগের, আর আমার জীবনে ঘটে যাওয়া বাস্তব একটা ঘটনা আর আমার প্রথম সেক্স যা আমার বড়ো আপু হুসনার সাথে ঘটা এক দুর্ঘটনা আর ওই দিনের পর থেকে আমার জীবনটা অন্য দিকে (ফামিলি সেক্স) মোড় নেয় ইতোমধ্যে আমি আমার প্রথম গল্প "মায়ের আত্মসমর্পণ" আপনাদের সামনে উপস্থাপন করেছি আর ভালো সারা পেয়েছি